৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
shadhin kanto

এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে স্বচ্ছতার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা

প্রতিনিধি :
স্বাধীন কণ্ঠ
আপডেট :
এপ্রিল ২২, ২০২২
61
বার খবরটি পড়া হয়েছে
শেয়ার :
এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে স্বচ্ছতার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা
ছবি- সংগৃহীত | ছবি : এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে স্বচ্ছতার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা

ডেস্ক রিপোর্টঃ এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রমে বিদ্যমান নীতিমালার সঙ্গে নতুন কিছু শর্ত যোগ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বিকাশমান এ খাতে স্বচ্ছতা আনতে এ উদ্যোগ নিলো ব্যাংক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

জানা যায়, নতুন শর্তের মধ্যে রয়েছে- গ্রাহকের জাতীয় পরিচয়পত্র ও গোপন পাসওয়ার্ডসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য নিশ্চিতকরণ, এজেন্টের মালিকের তথ্য সংরক্ষণ, এজেন্ট আউটলেট মনিটরিং এবং আউটলেট চালু ও স্থানান্তরের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগের পূর্ব অনুমোদন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ-বিআরপিডি থেকে এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দিয়ে সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী বরাবর পাঠানো হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, এজেন্ট ব্যাংকিং পরিচালনায় এজেন্টের ছবি, জতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, পিন নম্বর, বায়োমেট্রিক আঙ্গুলের ছাপ ও লেনদেনের তথ্য সংক্রান্ত গোপন কোড নিশ্চিত করতে হবে। এজেন্ট ব্যাংকিং আইন ও নীতিমালা অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের নিয়োজিত কর্মকর্তাকে সরাসরি আউটলেট পরিদর্শন করে এর যাবতীয় কার্যক্রম কঠোরভাবে যাচাই করে প্রতিবেদন প্রস্তুত করতে হবে।

আরও পড়ুন>>>বাগেরহাটের রামপালে ক্রেতারা হচ্ছেন প্রতারণার শিকার

আউটলেটের ব্যবস্থাপক অথবা নিয়োজিত কর্মকর্তা এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রম ব্যাংকের শাখার সঙ্গে পরামর্শ করে এর কার্যক্রম মনিটর করবেন। এজেন্ট মালিকানার পরিবর্তনের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকে লিখিত আবেদন করে আগেই অনুমতি নিতে হবে। তবে মালিকানার পরিবর্তনে অনুমতির প্রয়োজন হলেও আউটলেট বন্ধ করতে অনুমতির প্রয়োজন হবে না।

এছাড়া গ্রাহকের পরিচয় হিসেবে ছবি, জতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, পিন নম্বর, বায়োমেট্রিক আঙ্গুলের ছাপ, এটিএম কার্ড, লেনদেনের তথ্য সংক্রান্ত গোপন কোড প্রভৃতি নিশ্চিত করতে হবে। সংশ্লিষ্ট ব্যাংকসমূহকে এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রমের ত্রৈমাসিক প্রতিবেদনের অনলাইন ও হার্ডকপি পরবর্তী মাসের সাত কার্যদিবসের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা দিতে হবে।

ব্যাংকসমূহকে ত্রৈমাসিক প্রতিবেদনে এজেন্ট ব্যাংকিং পরিচালনার সময় সংঘটিত অনিয়ম, জালিয়াতি, স্ক্যান্ডাল ও অনভিপ্রেত দুর্ঘটনা প্রভৃতি উল্লেখ করতে হবে। এ ধরনের ঘটনায় নিজেদের গৃহীত পদক্ষেপ ও শাস্তির বর্ণনা দিতে হবে। এ ধরনের কোনো ঘটনা না ঘটলে সেটিও বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইনক্লুশন বিভাগকে জানাতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

গরম খবর
menu-circlecross-circle linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram