২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
shadhin kanto

প্রকোপ ঠেকাতে দেশে আসছে ৭৫ লাখ ডোজ কলেরার টিকা

প্রতিনিধি :
স্বাধীন কণ্ঠ
আপডেট :
এপ্রিল ২৮, ২০২২
2
বার খবরটি পড়া হয়েছে
শেয়ার :
প্রকোপ ঠেকাতে দেশে আসছে ৭৫ লাখ ডোজ কলেরার টিকা
ছবি- সংগৃহীত | ছবি : প্রকোপ ঠেকাতে দেশে আসছে ৭৫ লাখ ডোজ কলেরার টিকা

ডেস্ক রিপোর্টঃ দেশে ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে ডায়রিয়া পরিস্থিতি। বিগত মাস থেকেই উদ্বেগজনকভাবে বাড়ছে রোগীর সংখ্যা। দিন দিন চরম অবনতি হচ্ছে পরিস্থিতির। প্রথমদিকে রাজধানীতে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিলেও এখন তা দেশজুড়েই। সারাদেশের জেলা-উপজেলায় বাড়ছে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা।গত ২৫ বছরের মধ্যে ঢাকায় ডায়রিয়ার এত বেশি প্রকোপ দেখা যায়নি বলে মনে করছে সরকার।

শুধু দেশেই নয়, ঢাকার ডায়রিয়ার জীবাণু নেতিবাচক প্রভাব ছড়াচ্ছে বিদেশেও। তাই দেশের এই কলেরা বা ডায়রিয়ার প্রকোপ প্রতিরোধে মে মাসের ১০ থেকে ১৫ তারিখের মধ্যে ৭৫ লাখ কলেরা ভ্যাকসিন দেশে আসবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এসব ভ্যাকসিন দিচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

আরও পড়ুন>>>এখন থেকে মেয়াদ ছাড়াই চলবে মোবাইল ডাটা

তিনি বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আমাদের ৭৫ লাখ কলেরা ভ্যাকসিন দিবে। এর দুটি ডোজ যে নিবে সে ৩ বছর পর্যন্ত কলেরা বা ডায়রিয়া থেকে মুক্ত থাকবে। তিনি আরো বলেন, গ্রীষ্মকালে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে ডায়রিয়ার প্রকোপ বাড়ার একটা প্রবণতা দেখা যায়। কিন্তু ঢাকায় ডায়রিয়ার প্রকোপ এত বৃদ্ধি নিয়ে পর্যালোচনা করে কিছু সমস্যা চিহ্নিত করা হয়েছে, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

ঢাকার ডায়রিয়ার প্রকোপ দেশের অন্যতম আয়ের খাত প্রবাসী শ্রমিকদেরকেও হুমকিতে ফেলছে। এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, সৌদি আরব, কুয়েত ও কাতার থেকে জানানো হয়েছে যে তোমাদের লোকজন যারা আসে, তাদের অনেকের মধ্যে আমরা ডায়রিয়ার জীবাণু পাচ্ছি। এর কারণ খুঁজতে গিয়ে আমাদের বিশেষষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলেছিল।

তারা বলছেন, গ্রামের পানিতে ডায়রিয়ার জীবাণু নেই। কিন্তু গ্রামের মানুষ বিদেশে যাওয়ার আগে কয়েকদিন ঢাকায় থাকে। তখন তাদের শরীরে ডায়রিয়ার জীবাণু ঢুকছে। ওয়াসার পক্ষ থেকে বিভিন্ন হোটেলে পানি পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। যতটুকু বোঝা যাচ্ছে যারা, হোটেল রেস্তোরাঁ ও মেসে খাওয়া-দাওয়া করে তাদের বেশি ডায়রিয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

গরম খবর
menu-circlecross-circle linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram