২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
shadhin kanto

যশোর শহরের জেলরোড এলাকায় কিশোর গ্যাং বেপরোয়া

প্রতিনিধি :
স্বাধীন কণ্ঠ
আপডেট :
আগস্ট ১৩, ২০২২
9
বার খবরটি পড়া হয়েছে
শেয়ার :
| ছবি : 

জেলা প্রতিনিধি যশোরঃ যশোর শহরের জেলরোড এলাকা বর্তমানে সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। এখানে দুই সহোদরের নেতৃত্তে গড়ে উঠা "কিশোর গ্যাং" সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে ফেলেছে।

স্থানীয় ফাঁড়ি পুলিশের রহস্যজনক নীরবতার কারণে অসহায় হয়ে পড়েছে মানুষ।

আরও পড়ুন>>>যশোরে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্টিত

অনুসন্ধানে জানা গেছে, জেলরোড বেলতলার বউবাজার এলাকার জুয়েল ও ইয়াসিন কয়েক বছর আগে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী গড়ে তোলে। এলাকায় অত্যাচার-নির্যাতন, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, মাদক ব্যবসা, মুক্তিপণ আদায়সহ নানা অপরাধের মাধ্যমে অল্প সময়ে এই বাহিনী জনমনে ত্রাস সৃষ্টি করে। কেউ প্রতিবাদ করলে তার ওপর চালানো হতো নির্যাতন। পুলিশ দিয়েও হয়রানি করা হতো। একসময় মানুষ ভয়ে প্রতিবাদের ভাষা হারিয়ে ফেলে।
বর্তমানে এই বাহিনীর প্রধান জুয়েল ও ইয়াসিন গঠন করেছে "কিশোর গ্যাং"। যার সদস্য সংখ্যা ২০/২৫ জন। বয়স ১৫ থেকে ২০ বছরের মধ্যে। এই বয়সী কিশোররা দুর্ধর্ষ হয়ে থাকে এবং সকল ধরনের অপরাধ ঘটাতে প্রস্তুত। যে কারণে শীর্ষ সন্ত্রাসী জুয়েল ও ইয়াসিন তাদের নিয়ে কিশোর গ্যাং গড়ে তুলেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ জানান, জুয়েল ও ইয়াসিন গোটা জেলরোড এলাকা নিয়ন্ত্রণ করছে। এখানে কেউ চাঁদা না দিয়ে বসবাস বা ব্যবসা করতে পারেন না। কারণে-অকারণে তারা চাঁদা দাবি করছে। আর চাঁদা না দিলেই নেমে আসে নির্যাতন। এরা অবৈধ অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে মানুষকে জিম্মি করে রেখেছে।
তারা জানান, স্থানীয় উপশহর ফাঁড়ি পুলিশের সদস্যরা বিশেষ স্বার্থে এই সন্ত্রাসীদের লালন করছেন। প্রায়ই এই কিশোর অপরাধীদের সাথে পুলিশ সদস্যদের খোশগল্প করতে দেখা যায়। জেলরোডে চলাচলকারী ইজিবাইক থেকে এই সন্ত্রাসীরা জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া অস্ত্রের মুখে পথচারীদের কাছ থেকেও টাকা, মোবাইল ফোন ইত্যাদি ছিনিয়ে নিচ্ছে এরা।
সূত্র জানায়, জুয়েল ও ইয়াসিন অপরাধ পরিচালনার জন্য নিজেদের দুটি প্রাইভেটকার ও একটি পিকাপভ্যান ব্যবহার করছে। এরা বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজন অপহরণ করে এনে মুক্তিপণ আদায়ের কাজে ব্যবহার করছে প্রাইভেটকার দুটি। আর পিকাপভ্যানটি ব্যবহার করা হয় মাদক ব্যবসাসহ অপরাধমূলক কাজে।
গভীর রাতে জেলরোডে এদের অবাধ বিচরণ এবং বাইরে থেকে অপরিচিত মানুষজনের আনাগোনা নিয়ে জনমনে আতংকের সৃষ্টি হয়েছে।
সূত্র মতে, এই সন্ত্রাসীরা স্থানীয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কৌশলে আগ্নেয়াস্ত্র রেখে পুলিশ দিয়ে হয়রানি এবং পরবর্তীতে অর্থবাণিজ্য করে থাকে। এই কাজে উপশহর পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের সহযোগিতা করে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, এবারের ঈদেও সন্ত্রাসী জুয়েল ও ইয়াসিন দলবল নিয়ে জেলরোড এলাকায় গণহারে চাঁদাবাজি করেছে। তাদের ভয়ে কেউ টু-শব্দটি করতে পারেননি।
তারা জানান, এলাকার মাদক ব্যবসাও নিয়ন্ত্রণ করছে এই সন্ত্রাসীরা। তাদের কাছে অবৈধ পিস্তলসহ নানা ধরনের অস্ত্র রয়েছে। এরা প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিয়ে মানুষের মধ্যে আতংক সৃষ্টি করছে। একটু রাত হলে জেলরোড দিয়ে মানুষ চলাচল করতে ভয় পায়। কারণ তারা অস্ত্রের মুখে মানুষজনের কাছ থেকে টাকা, মোবাইল ফোনসহ বিভিন্ন মালামাল ছিনিয়ে নিচ্ছে।
গভীর রাতে মাদক সেবনের পাশাপাশি নারী নিয়ে তারা ফুর্তি করে বলে অভিযোগ রয়েছে। এতে এলাকার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।
সূত্র মতে, ইতিপূর্বে জুয়েল ও ইয়াসিন একটি ইজিবাইক ছিনতাই করে চালককে হত্যা করেছিল। স্কুলছাত্র এই ইজিবাইক চালকের লাশ উদ্ধার হয় জেলরোড সংলগ্ন উন্মুক্ত বিশব্বিদ্যালয়ের কাছ থেকে। বিষয়টি জানাজানি হলে উক্ত সন্ত্রাসীরা তদবিরের মাধ্যমে আলোচিত এ ঘটনা ধামাচাপা দিতে সক্ষম হয়।
জেলরোডের ব্যবসায়ীরা জানান, "লাখ লাখ টাকা দিয়ে পজিশন নিয়ে ব্যবসা করছি। মহামারি করোনায় চরম আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। যে ক্ষতি আজও পুষাতে পারিনি। এর ওপর জুয়েল ও ইয়াসিন বাহিনীর চাঁদাবাজি ও অত্যাচারে আমরা অতিষ্ঠ। বর্তমানে আমাদের ব্যবসা বন্ধ করে দেয়ার উপক্রম হয়েছে।" প্রশাসন নীরব থাকার কারণে চিহ্নিত এই সন্ত্রাসীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ করেন তারা।
ব্যবসায়ীরা দুর্ধর্ষ জুয়েল-ইয়াসিন বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এদিকে এ ব্যাপারে বক্তব্য নেয়ার জন্য অভিযুক্ত জুয়েল ও ইয়াসিনের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।
এব্যাপারে যশোর কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ তাজুল ইসলাম জানান,অভিযোগ পেলে ব্যবস্হা নেয়া হবে। তাছাড়া অপরাধী যেই হোক কোন ধরনের ছাড় নেই বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

গরম খবর
menu-circlecross-circle linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram