২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
shadhin kanto

সেই চুরি হওয়া নবজাতক ২৪ দিন পর নড়াইলে উদ্ধার

প্রতিনিধি :
স্বাধীন কণ্ঠ
আপডেট :
ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২৩
43
বার খবরটি পড়া হয়েছে
শেয়ার :
| ছবি : 

ডেস্ক রিপোর্টঃ খুলনা মেডিক্যাল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের গেট থেকে চুরির ২৪ দিন পর এক নবজাতককে উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) গভীর রাতে নড়াইলের কালিয়া থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়।

সে বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার পিলজঙ্গের তোরাব আলী ও রানী বেগমের ছেলে। শিশুটিকে বর্তমানে খুমেকের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ডিএনএ টেষ্টের জন্য রাখা হয়েছে। তবে আজ শুক্রবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) হওয়ায় তার টেষ্ট হবে না।

নবজাতকের মামা মোস্তফা বলেন, নড়াইলের কালিয়া উপজেলার পুরোলিয়া ইউনিয়নের পারকৃষ্ণপুর গ্রামের রাশেদ মোল্লার বাড়ি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়েছে। সেনেরবাজারে আমাদের আত্মীয় আছে। তাদের আবার নড়াইলেও আত্মীয় রয়েছে। সেই সূত্রে আমরা সবাইকে জানিয়ে রেখেছিলাম বাচ্চা হারিয়ে গেছে, কোনো জায়গায় যদি বাচ্চা কেনাবেচা হয় বা কারও বাড়ি যদি বাচ্চা হওয়ার কথা না থাকলেও বাচ্চা দেখে তাহলে যেন আমাদের খবর দেয়। সেইভাবে আমাদের তারা খবর দেয়। আমরা ওখানে যাওয়ার পর নিশ্চিত হয়ে পুলিশ ও র‌্যাবের সঙ্গে কথা বললে তারা অভিযান চালিয়ে বাচ্চা উদ্ধার করে। যে নারী বাচ্চা কিনেছেন তাকে ও তার স্বামীসহ আরও দুইজন নারীকে সঙ্গে এনে সোনাডাঙ্গা থানায় রেখেছে পুলিশ। তাদের বলেছে তোমরা থানায় চল ডিএনএ চেষ্ট করার পর বাচ্চা তোমাদের হলে ফিরিয়ে দেওযা হবে। তারা বলেছে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা দিয়ে বাচ্চা ঢাকা থেকে কিনে এনেছে।

আরও পড়ুন>>>ব্রয়লার মুরগি ২৩০, কাঁচা মরিচ ১৬০

শিশুটির বাবা তোরাব আলী ও মা রানী বেগম বলেন, আল্লাহর কাছে আমরা অনেক শোকর আদায় করছি। এজন্য পুলিশ ও র‌্যাবসহ যারা আমাদের সহযোগিতা করেছেন তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। আমরা আমাদের বাচ্চা চিনতে পারছি। এটাই আমাদের বাচ্চা।

তদন্ত কর্মকর্তা ও সোনাডাঙ্গা থানার উপ-পরিদর্শক তোফায়েল হোসেন বলেন, খুমেক হাসপাতাল থেকে গত ২৪ জানুয়ারি বিকেলে ওই নবজাতককে চুরি করা হয়। এ ঘটনায় ২৫ জানুয়ারি নবজাতকের নানা বেলায়েত হোসেন মামলা করার পর পুলিশ অভিযুক্ত ৬ জনের মধ্যে ৫ জনকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে।

পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কালিয়ার পারকৃষ্ণপুর গ্রাম থেকে ওই নবজাতককে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় যাদের কাছে শিশুটিকে পাওয়া গেছে তাদের থানায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে। এছাড়া তারা যাদের কাছ থেকে বাচ্চাটি নিয়েছে তাদেরকেও হাজিরের চেষ্টা করা হচ্ছে। শিশুটিকে সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে পরিচয় নিশ্চিত হতে খুমেক হাসপাতালের ওসিসিতে ডিএনএ পরীক্ষার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৪ জানুয়ারি (মঙ্গলবার) বিকেলে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গেটের সামনে থেকে এক নবজাতক ছিনতাই হয়। বাগেরহাটের ফকিরহাটের পিলজঙ্গের তোরাব আলী ওই দিন সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে খুমেক হাসপাতালে তার স্ত্রীকে নিয়ে আসেন। দুপুর ১টা ৪০ মিনিটের দিকে তার ছেলে হয়। বিকেলে বাচ্চা নিয়ে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার জন্য অ্যাম্বুলেন্স ঠিক করতে যান তোরাব আলী। তখন তার সঙ্গে ভাড়া নিয়ে কথা কাটাকাটি হয় অ্যাম্বুলেন্স চালকের। পরে সেই চালক গাড়ি নিয়ে এসে তাদের নিয়ে যেতে চায়। কিন্তু তিনি আগে যে গাড়ি দেখিয়েছিলেন সেটা না এনে ছোট গাড়ি নিয়ে আসেন। তখন তোরাব আলীর সঙ্গে ওই চালক ও তার লোকদের কথা কাটাকাটি থেকে হাতাহাতি শুরু হয়। এসময় নবজাতকের নানা, বাবা ও মামার ওপর হামলা চালানো হয়। নবজাতকের খালার কাছে বাচ্চা ছিল। সে যখন দেখে তার বাবা ও ভাইকে মারছে তখন অস্থির হয়ে যান। তার পাশে থাকা এক নারী তাকে বলে আমার কাছে বাচ্চা দিয়ে ওদের ঠেকান। তিনি ওই নারীকে তার ভাবি মনে করে বাচ্চা দিয়ে মারামারি ঠেকাতে যান। মারামারি শেষে এসে সবাই দেখে বাচ্চাসহ সেই নারী আর নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

গরম খবর
menu-circlecross-circle linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram